Home লালপুর অ-পাত্রে নৌকা, লালপুরে ভরাডুবির মুলকারণ

অ-পাত্রে নৌকা, লালপুরে ভরাডুবির মুলকারণ

53
0
নৌকা মার্কা প্রতীক

নিজস্ব প্রতিবেদক:
দেশের সবচেয়ে গরম অঞ্চল হিসেবে পরিচিত রয়েছে লালপুর উপজেলা। নতুন করে এই উপজেলা পরিচয় করে দেওয়ার কিছুই নেই। তবে রাজনৈতিক ভাবে পরিচিত করতে গেলে বরাবরই বিএনপির ভোট ব্যাংক হিসেবে পরিচিত লালপুর উপজেলাটি। এই জন্য সাবেক ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মরহুম ফজলার রহমান পটলের নাম আসবে।

তবে প্রেক্ষপট পরিবর্তনের কারনে এবার সেই উপজেলায় নৌকার প্রার্থীদের শোচনীয় পরাজয় ঘটেছে। ১০টি ইউনিয়নের মধ্যে মাত্র তিনটিতে আওয়ামীলীগের প্রার্থী জয়লাভ করেছে। বাঁকি ৭টিরমেধ্যে দুটিতে বিএনপি এবং ৫টিতে নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থীরা জয়লাভ করেছে।

তবে নৌকার প্রার্থীদের পরাজয়ের কারন হিসেবে স্থানীয় নেতা-কর্মীরা বলছে, যারা চেয়ারম্যান ছিল, তারাই বেশির ভাগ নৌকা মার্কা পেয়েছিল। যার কারনে তাদের দুর্ণীতি আর অ-পাত্রে নৌকা দেওয়ার কারনে এমন ভরাডুবির ঘটনা ঘটেছে। সেই সাথে নৌকার প্রার্থীদের চেয়ে বিদ্রোহীরা জনপ্রিয় হওয়ার কারনে নৌকার এমন পরাজয়।

ভোট বিশ্লেষণে দেখা যায়, লালপুর সদর ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনীত আবু বকর সিদ্দিক পলাশ (নৌকা) ৬৮৯৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মনোয়ার হোসেন নান্টু (ঘোড়া) প্রতীকে ৫৭৭৪ ভোট পেয়েছে।

ঈশ্বরদী ইউনিয়নে বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল আজিজ রঞ্জু(ঘোড়া) ৬৯৩২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আমিনুল ইসলাম জয় ৬১৭০ ভোট পেয়েছে।

চংধুপইল ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী রেজাউল করিম (নৌকা)প্রতীকে ১৩০৫২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবদুল্লাহ আল মামুন অরেঞ্জ(ঘোড়া) প্রতীকে ৩৬৪০ভোট পেয়েছে।

আড়বাব ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মকলেছুর রহমান(ঘোড়া)প্রতীকে ভোট পেয়ে ৬৮৮৩ বিজয়ী হয়েছে।তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের ইমদাদুল হক(নৌকা) প্রতীকে ৩৯১৪ ভোট পেয়েছে।

বিলমাড়ীয়া ইউনিয়নে সিদ্দিক আলী মিষ্টু (ঘোড়া) প্রতীকে৪৮৬৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মিজানুর রহমান মিন্টু (আনারস) প্রতীকে ৪৮৫১ভোট পেয়েছে।

দুড়দুড়িয়া ইউনিয়নে তোফাজ্জল হোসেন তোফা (আনারস) প্রতীকে ৬১২৫ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএপির স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম(ঘোড়া) প্রতিকীকে পেয়েছে।

এবি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী গোলাম মোস্তফা আসলাম (আনারস)প্রতীকে ৫৯১১ পেয়ে বিজয়ী হয়েছে।তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থী আব্দুস সাত্তার (নৌকা)প্রতীকে ২৯২৮ ভোট পেয়েছে।

দুয়ারিয়া ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থী নূরুল ইসলাম লাভলু(নৌকা) প্রতীকে ৫৫৯৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে।তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আতাউর রহমান জার্জিস (ঘোড়া)প্রতীকে ৪১৮৮ ভোট পেয়েছে।

ওয়ালিয়া ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নূরে আলম সিদ্দিকী আলম (ঘোড়া) প্রতীকে ৯৪৮০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে,তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থী আনিছুর রহমান (নৌকা) প্রতীকে ৮৭৫৯ ভোট পেয়েছে।

কদিমচিলান ইউনিয়নে আনছারুল ইসলাম(ঘোড়া)প্রতীকে ৮২২০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে।তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থী সেলিম রেজা (নৌকা) প্রতীকে ৩৯৭৯ ভোট পেয়েছে।

Previous articleনাটোরের দুটি উপজেলার ১৫টি ইউপিতে নৌকা ৫, বিএনপি ৪ এবং বিদ্রোহী ৬টিতে জয়লাভ
Next articleসিংড়ায় মুচলেকায় ছাড়া পেল ৩ পাখি শিকারি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here